বাংলাদেশে আসছে কেটিএম মোটরসাইকেল!

বেশ কিছুদিন ধরেই ভারতে গুজব শোনা যাচ্ছে যে বাংলাদেশের একটি খ্যাতনামা কোম্পানি বাংলাদেশে কেটিএম মোটরসাইকেল আমদানী করবে। এর ফলে, হয়তো এই বছরেই আমরা আমাদের দেশের রাস্তায় কেটিএম ডিউক১২৫ এবং কেটিএম আরসি১২৫ দেখতে পাবো। KTM একটি অস্ট্রিয়ান কোম্পানি যারা মূলত ৫০ থেকে ১৩০০ সিসির মোটরসাইকেল প্রস্তুত করে থাকে। তারা মূলত স্ট্রীট বাইক এবং স্পোর্টস বাইক তৈরী করে থাকে, এছাড়াও তারা সমগ্র বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম অফ-রোড মোটরসাইকেল প্রস্তুতকারক। বর্তমানে কেটিএম এজি এর ৪৬% এর মালিকানা রয়েছে CROSS KraftFahrZeug Holding GmbH এর কাছে, যেটি CROSS Industries AG এর একটি অঙ্গ সংগঠন। এবং, এর বাকি ৫২% বাজাজ অটো এর মালিকানাধীন। ভারতে, কেটিএম এর ৭৮%…

Review Overview

User Rating: 4.73 ( 3 votes)

বেশ কিছুদিন ধরেই ভারতে গুজব শোনা যাচ্ছে যে বাংলাদেশের একটি খ্যাতনামা কোম্পানি বাংলাদেশে কেটিএম মোটরসাইকেল আমদানী করবে। এর ফলে, হয়তো এই বছরেই আমরা আমাদের দেশের রাস্তায় কেটিএম ডিউক১২৫ এবং কেটিএম আরসি১২৫ দেখতে পাবো।

কেটিএম মোটরসাইকেল

KTM একটি অস্ট্রিয়ান কোম্পানি যারা মূলত ৫০ থেকে ১৩০০ সিসির মোটরসাইকেল প্রস্তুত করে থাকে। তারা মূলত স্ট্রীট বাইক এবং স্পোর্টস বাইক তৈরী করে থাকে, এছাড়াও তারা সমগ্র বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম অফ-রোড মোটরসাইকেল প্রস্তুতকারক।

বর্তমানে কেটিএম এজি এর ৪৬% এর মালিকানা রয়েছে CROSS KraftFahrZeug Holding GmbH এর কাছে, যেটি CROSS Industries AG এর একটি অঙ্গ সংগঠন। এবং, এর বাকি ৫২% বাজাজ অটো এর মালিকানাধীন। ভারতে, কেটিএম এর ৭৮% অংশ বাজাজ অটো এর মালিকানাধীন, এবং ২১% CROSS AG এর মালিকানাধীন। [তথ্যসূত্র – উইকিপিডিয়া]

ktm bd

কেটিএম হচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ন রেসিং ইভেন্টে অংশ নেয়া অন্যতম বৃহত্তম কোম্পানি। তাদের অফরোড মোটরসাইকেলগুলো বিভিন্ন ফ্রিস্টাইল মোটরসাইকেল সিরিজে অত্যান্ত জনপ্রিয়। তারা সবচাইতে বিখ্যাত ডাকার র‌্যালি (Dakar Rally) এর জন্য, যেটাকে পৃথিবীর অন্যতম বিপদজনক মোটরস্পোর্টস হিসেবে গন্য করা হয়। এছাড়াও, এই বছরে তারা মোটোজিপিতে অংশ নিয়েছে, যেটা মোটরসাইকেল রেসিং এর সর্বোচ্চ পর্যায়ের প্রতিযোগিতা। কিছুদিন আগেই বাংলাদেশে একটি মোটোজিপি বাইক প্রদর্শন করা হয়েছিলো।

ইউরোপ এবং সমগ্র এশিয়াতে কেটিএম মোটরসাইকেল অত্যান্ত জনপ্রিয় মোটরসাইকেল ব্র্যান্ড, বিশেষত ভারতে KTM Duke 200 এবং Duke 390 অত্যান্ত জনপ্রিয়। এছাড়াও, তাদের স্পোর্টস বাইক KTM RC 200 এবং RC 390 ভারতের অন্যান্য স্পোর্টস বাইকের চাইতে বিক্রির দিক দিয়ে অনেক এগিয়ে।

ktm duke 125 review

আফসোসের বিষয় হচ্ছে, বাংলাদেশের সিসি লিমিটের জন্য আমরা কখনোই এই বাইকগুলোকে দেখতে পাবো না, তবে কেটিএম মোটরসাইকেল এর প্রোডাক্ট লাইনআপ দেখে অনুমান করা যাচ্ছে যে নিন্মোক্ত বাইকগুলো বাংলাদেশে আসার একটি বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে –

ডিউক ১২৫ (Duke 125)

কেটিএম ডিউক ১২৫ একটি স্ট্রীট বাইক যেটা তার এগ্রেসিভ চেহারার জন্য অত্যন্ত জনপ্রিয়। এবং, ২০১৭ এর নতুন ডিজাইন এর সাথে বাইকটিকে আরো বেশি আক্রমনাত্মক দেখায়! কেটিএম সেসকল কোম্পানিগুলোর মধ্যে একটি যারা তাদের বাইকের চেহারা অর্থাৎ আউটলুক এর সাথে কোনপ্রকার আপোষ করতে রাজি নয়। যদিও এটি একটি ১২৫ সিসি বাইক, তবুও ২০১৭ মডেলে কিছু নতুন এবং এক্সক্লুসিভ ফিচার রয়েছে ।

  • নতুন এলইডি হেডলাইট এবং টেইললাইট।
  • নতুন সাব ফ্রেম এবং তীক্ষ্ণ স্টাইলিং।
  • নতুন ব্রেক লিভার।
  • কিছুটা ভিন্ন স্টাইলের ইগনিশন কী স্লট।
  • নতুনভাবে ডিজাইন করা পেছনের সিট।
  • পাইলিয়নের জন্য বাইকের ডিজাইনের সাথে মিশিয়ে ডিজাইন করা গ্র্যাবরেইল।
  • বাইকের সামনে নতুন ৪৩ মিলিমিটার এর ইনভার্টেড সাসপেনশন।
  • ৩০০ মিলিমিটার এর ডিস্কসমৃদ্ধ ByBre ব্রেক ক্যালিপার।
  • ভিন্ন ডিজাইনের পার্শ্ববর্তী এক্সহস্ট।
  • নতুন এলইডি স্পীডোমিটার।
  • এতে রয়েছে মাই রাইড নামের এক নতুন টেকনোলজি যেটা বাইকারের স্মার্টফোনের সাথে বাইকের টিএফটি কালার ডিসপ্লেকে সিনক্রোনাইজ করে।
  • এতে ডুয়েল চ্যানেল এবিএস রয়েছে।
  • নতুন ডিজাইন এর সুইচ রয়েছে।

ktm duke 125 price in bangladesh 2017

কেটিএম ডিউক ১২৫ – ২০১৭ এডিশন এর ইঞ্জিনটি মূলত এক সিলিন্ডারবিশিষ্ট ওয়াটার কুলড ইঞ্জিন যেটাতে ফুয়েল ইঞ্জেকশন সিস্টেম রয়েছে। ইঞ্জিনটি ১৫ বিএইচপি শক্তি এবং ১১.৮ নিউটন মিটার টর্ক উতপন্ন করতে সক্ষম। এবং, ইঞ্জিনটি ইউরো-ফোর স্ট্যান্ডার্ড মেনে তৈরী করা, ফলে এটি আগের কেটিএম ডিউক ১২৫ এর চাইতে বেশি স্মুথ এবং ফুয়েল এফিশিয়েন্ট হবে। এর ট্রান্সমিশন সিস্টেমটি ৬ গিয়ারবিশিষ্ট।  বাইকটির ওজন আগের চাইতে বেশ ভালো পরিমানেই বৃদ্ধি পেয়েছে, বাইকটির বর্তমান ওজন হচ্ছে ১৩৭ কিলোগ্রাম।

আরসি ১২৫ (RC 125)

আরসি ১২৫ হচ্ছে কেটিএম এর ১২৫ সিসির একটি স্পোর্টস বাইক যার প্রায় সকল ফিচারই কেটিএম ডিউক ১২৫ এর সাথে মিলে যায়। তবে, কেটিএম আরসি ১২৫ এর সামনে ফুল বডিকিট এবং ডুয়েল হেডলাইট রয়েছে। বাইকটিতে বডির সাথে সংযুক্ত ইন্ডিকেটর, আলাদা সিট, এবং একটি ভিন্ন ডিজাইনের স্পীডোমিটার রয়েছে। বাইকটির হ্যান্ডেলবার এর অবস্থান কেটিএম ডিউক ১২৫ এর থেকে সম্পূর্ন ভিন্ন, বাইকটির হ্যান্ডেলবার এর অবস্থান সম্পূর্ন সুপার স্পোর্টস বাইকের মতো করা হয়েছে। বাইকটির ইঞ্জিন এবং চ্যাসিস ডিউক ১২৫ এর সাথে সম্পূর্ন মিলে যায়, তবে বাইকটির ওজন প্রায় ২ কিলোগ্রাম কম, এবং এতে তূলনামূলক ছোট আকারের ফুয়েল ট্যাংক সংযুক্ত করা হয়েছে যা ১০ লিটার তেল ধারন করতে পারে।

ktm rc125 price in bangladesh 2017

এক্সসি ১২৫ এবং এক্সসি ১৫০ (XC125 & XC150)

কেটিএম এক্সসি ১২৫ এবং কেটিএম এক্সসি ১৫০ – উভয় বাইকই সম্পূর্ন অফ-রোড বাইক, যাতে সাধারনভাবেই খাটি অফ-রোড টায়ার রয়েছে। উভয় বাইকেই অত্যান্ত উচ্চমানের সাসপেনশন সিস্টেম রয়েছে যা যেকোনপ্রকারের রাস্তা বা সারফেসের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে পারে। আমরা নিশ্চিত নই যে এই বাইকদুটি বাংলাদেশে আসবে কিনা, তবে আমরা মনেপ্রানে চাই এই বাইকদুটো যাতে বাংলাদেশে আসে কারন বাংলাদেশে ভালোমানের অফ-রোড বাইকের অত্যান্ত চাহিদা  রয়েছে।

ktm dirt bike in bangladesh

দূ;খের বিষয়, যে এখনই আমরা সকলকে জানাতে পারছি না যে কোন কোম্পানি বাংলাদেশে কেটিএম মোটরসাইকেল নিয়ে আসবে, তবে বাংলাদেশে কোন মডেলগুলো আসবে, তাদের দাম কত হবে এবং কবে থেকে বাইকগুলো পাওয়া যাবে – এসকল তথ্য জানামাত্রই আমরা সকলের কাছে পৌছে দেবো। দিনশেষে, বাংলাদেশের রাস্তায় আন্তর্জাতিকমানের কেটিএম মোটরসাইকেল দেখা আমাদের জন্য আসলেই খানিকটা আশীর্বাদস্বরুপ।

About আহমেদ স্বজন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Sign up to our newsletter!