বাইক রাইডিং এর জন্য পারফেক্ট ড্রেস-আপ

আমরা যে কেউ যারা বাইক ভালোবাসি তারা সবসময়ই পৃথিবীর সবথেকে ভাল বাইকটি চালাতে চাই এবং এক্ষেত্রে আমরা অনেক সময় কনফিউজডও থাকি যে কোনটা সবথেকে সবদিক থেকে বেস্ট বাইক । কিন্তু , আমরা কখনই রাইডারের দিকে তাকাই না , তার লুকিং টা দেখি না এবং বিশেষ করে তার গেট আপ তো ফলোই করি না ।

বাইক রাইডিং এর ক্ষেত্রে রাইডারের ড্রেসিংটাও অন্যান্য সব বিষয়ের মতই সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ । এই বিষয়টা আমাদের সবারই মাথায় রাখা উচিৎ । তাই , এই ড্রেসিং এর বিষয়টা ভালভাবে জানা প্রত্যেক রাইডারের দরকার । এই ড্রেসিং আবার বিভিন্ন কন্ডিশনে বিভিন্ন রকম হতে পারে । আপনি যে একই ড্রেস আপ নিয়ে সবসময় রাইডিং করবেন সেটাও না । তাই এসব নিয়েই আজকের আমাদের এই পোষ্টটা । এটা দেখে আপনারা আপনাদের কোন ধরণের ড্রেসিং দরকার বা কোন সময় কোন ড্রেসটা পারফেক্ট বা আপনার জন্য কী ধরণের ড্রেস দরকার এইসব বিষয় সম্পর্কে জানতে পারবেন । সেই সাথে এখানে ফ্যাশনের বিষয়টাও মাথায় রাখা হয়েছে ।

তো চলুন আমরা দেখি বাইক চালানোর সময় কোন কোন ধরনের পোশাক এবং আনুষঙ্গিক পরিধেয় পরলে নিজেকে নিরাপদ রাখা যায় এবং নিজেকে ফ্যাশানেবল দেখায়।

বাইকাররা বাইক চালানোর সময় পোশাকের গুরুত্ব দিয়ে থাকেন, আপনাকে জানতে হবে আপনি যে বাইকটা চালাচ্ছেন তার ডিজাইনের সাথে আপনার পোশাক ম্যাচ করছে কি না? দূরঘটনার সময় আপনার পোশাক আপনাকে কি মাত্রায় প্রোটেকশন করবে সেসব বিষয়েও খেয়াল রাখতে হবে।নিচে নতুন বাইকারদের জন্য বাইক চালানোর সময় কি টাইপের পোশাক পরা উচিত সে বিষয়ে আলোকপাত করা হল।

হেলমেট:

বাইক চালানোর সময় হেলমেট পরিধান করা অতীব জরুরী।মাথায় হেলমেট পরিধান থাকলে অনাকাঙ্ক্ষিত দূরঘটনায় পড়লে বেশী আঘাত থেকে মাথাকে বাঁচানো যায়। বিশেষজ্ঞগন মাথায় পুরোপুরি ফিট হয় এমন হেলমেট পরিধান করতে সুপারিশ করেছেন।বাজারে বিভিন্ন সাইজের এবং বিভিন্ন গুন সম্পন্ন হেলমেট পাওয়া যায়।আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে ওই হেলমেটগুলোর মধ্য কোনটি আপনার জন্য পারফেক্ট।কখনো তিন বছরের পুরানো অথবা দুই ফুট উঁচু থেকে পড়ে যাওয়া হেলমেট ব্যবহার করবেন না এগুলো ভালো কাজ করেনা।হেলমেটের ভিসরটি তুলার নরম কাপড় দ্বারা পরিস্কার করতে হবে যেন দাগ না পড়ে।হেলমেটের জন্য সবাই কালো রং পছন্দ করে এটা এখনকার ট্রেন্ড, আপনি উজ্জল রং-এর হেলমেটও কিনতে পারেন যাতে আপনাকে সহজেই অন্যরা লক্ষ করতে পারে।

সাধারণ পোশাক:

বাইকারদের পোশাক সাধারণত দামী হয়।সে কারনে অনেকেই সাধারণ পোশাকে বাইক চালায় অথবা একটা-একটা করে পোশাক ক্রয় করে।যদি একটি একটি করে পোশাক ক্রয় করেন সেক্ষেত্রে আপনারা নিচের এই অর্ডার মেনে চলতে পারেন।

১। হেলমেট

২। সকল মৌসুমের জন্য গ্লোভস

৩। জ্যাকেট এবং ট্রাউজার(হালকা ধরনের এবং পানিরোধী )

৪। জ্যাকেট

৫। বুটস

৬। ট্রাউজার

খুব গরমের দিনে এবং খুব ঠাণ্ডার সময় বাইক নিয়ে বের হওয়া উচিত নয়।কারণ এ দুই ক্ষেত্রে দূরঘটনা হওয়া সম্ভাবনা বেশী থাকে যদি এই দুই সময়ে অতিপ্রয়োজনে বের হতে হয়, তখন এমন পোশাক পরবেন যা আপনাকে শুষ্ক ও উষ্ণ রাখে এবং আপনি কমফোর্ট ফিল করেন।

গ্লোভস:

কখনো গ্লোভস ছাড়া বাইক চালানো উচিত নয়। আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন যে বিভিন্ন মৌসুমে বিভিন্ন ধরনের গ্লোভস দারকার পড়ে।যেমন শীতকালে যে গ্লোভস ব্যবহার করবেন গরমকালে সেটা ব্যবহার করতে পারবেন না। স্কিন টাইপ গ্লোভস ফ্যাশানেবল এবং আপনাকে শুষ্ক রাখতে সাহায্য করবে।কিন্তু এই গ্লোভসের অভাবিত ঘটনা থেকে প্রোটেক্ট করার ক্ষমতা কম।সুতরাং যেটা আপনার জন্য ভালো সেটা ব্যবহার করেন।বাজারে ভালো মানের গ্লোভস কম দামে পেয়ে যাবেন।

ট্রাউজার:

হালকা এবং পানিরোধী নাইলনের পোশাক কম দামী এবং আপনি এটা ভাঁজ করে সহজে ক্যারিয়ারে নিতে পারবেন।আপনি এগুলো ডেনিম জ্যাকেট এবং জিন্সের সাথে ব্যবহার করতে পারবেন।

বাইক রাইডিং এর জন্য পারফেক্ট ড্রেস-আপ

জ্যাকেট:

জ্যাকেটের ক্ষেত্রে বুল্কি(স্কিন টাইপ) জ্যাকেট গুলো ব্যবহার না করাই ভালো।এগুলো দূরঘটনার সময় শরীরকে তেমন একটা প্রোটেকশন দিতে পারে না এবং বাইক চালানোর সময় বেশী বাতাস বাধে।বাইকিং জ্যাকেট ফেব্রিক অথবা লেদারের হলে ভালো।লেদার জ্যাকেট দূরঘটনা থেকে ভালো প্রোটেকশন করে আর ফেব্রিক জ্যাকেট সকল মৌসুমে ব্যবহার করা যায়।

বুটস:

যদি বাইকিং বুটস না থাকে তাহলে মোটা ধরনের শু ব্যবহার করতে পারেন।ওয়ার্ক বুটস এবং হেভি ওয়াকিং বুটস বাইকারদের ব্যবহারের জন্য ভালো মনে করা হয় কারণ মূলত তাত্ত্বিকভাবে বললে বলতে হয়, এটা অঅপনার গোড়ালির একটা এক্সট্রা নিরাপত্তা দেয় । এবং আপনি শুধু আপনার নিরাপত্তার জন্য যে করে হোক বুটের সামনে স্টিলের টো ক্যাপ বর্জন করবেন ।

তাহলে ট্রাউজারের ক্ষেত্রে আপনার কাছে দুটি অপশন আছে এক লেদার এবং অন্যটি ফেব্রিক। যদি আপনি নিরাপত্তার বিষয় মাথায় রাখেন তাহলে লেদার আপনার জন্য সব থেকে ভালো চয়েস এবং আবহাওয়া বিষয় বিবেচনায় নিলে ফেব্রিক আপনার জন্য ভালো হবে।পুরু ডেনিম জিন্স এক্ষেত্রে ভালো একটা বিকল্প এবং শরীরের সাথে ভালো ফিটিং হয়।

সুতরাং বাইক চালানোর সময় এই ধরনের পোশাক পরুন।তাহলে একই সাথে আপনাকে ফ্যাশানেবল দেখাবে এবং তুলনামূলক ভাবে নিরাপদ থাকবেন।বাইক চালানোর সময় নিজের প্রতি খেয়াল রাখবেন এবং ট্র্যাফিক আইন মেনে চলার চেষ্টা করবেন।

About শুভ্র সেন

সবাইকে শুভেচ্ছা । আমি শুভ্র,একজন বাইকপ্রেমী । ছোটবেলা থেকেই মোটরসাইকেলের প্রতি আমার তীব্র আগ্রহ রয়েছে । যখন আমি আমার বাড়ির আশেপাশে কোন মোটরসাইকেলের ইঞ্জিনের শব্দ শুনতে পেতাম, আমি তৎক্ষণাৎ মোটরসাইকেলটি দেখার জন্য ছুটে যেতাম ।২ বছর ধরে গবেষণা ও পরিকল্পনার পর আমি এই ব্লগটি তৈরী করি । আমার লক্ষ্য হল বাইক ও বাইক চালানো সম্পর্কে বাংলাদেশের মানুষের কাছে সঠিক তথ্য পৌঁছে দেয়া । সবসময় নিরাপদে বাইক চালান । আপনার বাইক চালানো শুভ হোক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Sign up to our newsletter!


error: সকল লেখা সুরক্ষিত !!