রানার মোটরবাইকের নতুন অফার

বাইক লিয়ে লম্বা ভ্রমনে আমরা- নাহিদ

দীর্ঘ দেড় মাসের পরিকল্পনার পর ৮ জুলাই সন্ধ্যায় ঢাকা থেকে ৯ টি বাইকে ১৪ জন হিল্ট্রেকের উদ্দেশ্যে রওনা দেই। ৯ তারিখ সকালে সাজেক পৌছাই। সাজেকে কিছু অপ্রিতিকর ঘটনার কারনে আমাদের দুটি বাইক ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেই । The Riderz এর Sohel ভাই এবং এনায়েম ভাই ঢাকায় আমাদের জন্যে অপেক্ষায় ছিলেন আমাদের হিলট্রেক শেষে কুয়াকাটা ট্যুরের জন্যে কিন্তু আমাদের বাকি টিম হিলট্রেক শেষ করতে বেশ কিছু দিন সময় লাগার কারে তারা সময় মত ট্যুরের সিদ্ধান্ত নেন। আমি সোহেল ভাই সোহাগ ভাই এবং মাওয়া থেকে Rasel ভাইকে ঐ কাপড়েই কোন প্রস্তুতি ছাড়াই ট্যুরের জন্যে নিয়ে যাই। ঐ দিকে Shahin ভাইয়ের কিছু ব্যাস্ততার…

Review Overview

User Rating: 2.75 ( 2 votes)

দীর্ঘ দেড় মাসের পরিকল্পনার পর ৮ জুলাই সন্ধ্যায় ঢাকা থেকে ৯ টি বাইকে ১৪ জন হিল্ট্রেকের উদ্দেশ্যে রওনা দেই। ৯ তারিখ সকালে সাজেক পৌছাই। সাজেকে কিছু অপ্রিতিকর ঘটনার কারনে আমাদের দুটি বাইক ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেই ।

কুয়াকাটা ছবি

The Riderz এর Sohel ভাই এবং এনায়েম ভাই ঢাকায় আমাদের জন্যে অপেক্ষায় ছিলেন আমাদের হিলট্রেক শেষে কুয়াকাটা ট্যুরের জন্যে কিন্তু আমাদের বাকি টিম হিলট্রেক শেষ করতে বেশ কিছু দিন সময় লাগার কারে তারা সময় মত ট্যুরের সিদ্ধান্ত নেন। আমি সোহেল ভাই সোহাগ ভাই এবং মাওয়া থেকে Rasel ভাইকে ঐ কাপড়েই কোন প্রস্তুতি ছাড়াই ট্যুরের জন্যে নিয়ে যাই।

সাজেক

ঐ দিকে Shahin ভাইয়ের কিছু ব্যাস্ততার কারনে আটকে যান। আমাদের সাথে আসতে পারেন নি। আমরা শরীয়তপুর ঐ দিন থেকে পরদিন সকালে কুয়াকাটার উদ্দেশে রওনানা দেই ও দুপুর ১২ টা নাগাদ কুয়াকাটা পৌছাই।

কুয়াকাটা ভ্রমণ

ঐ দিকে শাহিন ভাই আমাদের ছবি দেখে একাই গাজীপুর থেকে দুপুর ১২ টায় পূর্ব প্রস্তুতি ছাড়াই হঠাৎ কুয়াকাটা উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে সন্ধ্যায় কুয়াকাটা পৌছে আমাদের অবাক করে দেন। রাতে কুয়াকাটা থেকে পরের দিন সকালে আমরা খুলনার উদ্দেশে রওনা দেই এবং পথিমধ্যে খান জাহান আলীর মাজার ও বাগেরহাটের ষাট গম্ভুজ মসজিদ অবলোকন করি। খুলনা শহরে পৌছানোর আগে খুলনার প্রসিদ্ধ খান জাহান আলী সেতু (রুপসা সেতু) অতিক্রম করে খুলনা শহরে পৌছে দুপুরের খাবার খাই। অতপর খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ঘুরে গোপালগঞ্জ হয়ে& ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেই।

জিরো পয়েন্ট

বাংলাবান্ধা ও রাজশাহী কথন:
১৯ তাং শাহিন ভাই কল করে বললো ভালো লাগছে না। চলেন কোথাও থেকে ঘুরে আসি। ২০ তারিখ ঢাকায় আসার পর সকালেই শাহিন ভাই বলে পশ্চিম ও উত্তরাঞ্চলে যাবেন,  যে কথা সে কাজ তখনি আমরা যমুনা ব্রিজের উদ্দেশ্যে রওনা দেই। যমুনা ব্রিজ থেকে বগুড়ার বিখ্যাত দই ও নাস্তা করে বাংলাবান্ধার উদ্দেশে রওনা দিয়ে প্রায় দুপুর ২ টা নাগাদ বাংলাবান্ধা পৌছাই। বাংলাবান্ধা থেকে পঞ্চগড় দুপুরের খাবার খেয়ে রাত্রে রাজশাহী পোছে ঐ রাত্র রাজশাহী থেকে সারা দিন রাজশাহী ঘুরে বিকেলে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেই ও রাত্রে ঢাকা পৌছাই

বাংলাবান্ধা

এই ট্যুরে আমি যে সকল জেলায় ঘোরেছিঃ
ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, কুমিল্লা, ফেনি, খাগড়াছড়ি

ঢাকা, মুন্সিগঞ্জ, ফরিদপুর, শরিয়তপুর, মাদারীপুর, বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা,ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বাগেরহাট, খুলনা, গোপালগঞ্জ

গাজীপুর, টাংগাইল, সিরাজগঞ্জ, গাইবান্ধা, রংপুর, নিলফামারী, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, জয়পুরহাট, নওগাঁ, রাজশাহী, নাটোর।

বাইক নিয়ে ভ্রমণ

প্রত্যেক ট্যুরে কিছু অনুপ্ররনার মানুষ থাকে তাদের কথা না বললেই নয় যেমন হিলট্রেকের অনুপ্রেরনায় ছিলেন Mrk Sabuz, Hossain Bin Sayeed, Salman Farshy Ayon Sagar Ahmed Brz Rider Parves ভাই।

কুয়াকাটা ট্যুরের অনুপ্রেরনায় ছিলেন #সোহেল ভাই #সোহাগ ভাই।
আর এক জনের কথা অনসিকার্য যিনি না থকলে হয়ত আমার এই কোন ট্যুরই দেওয়া সম্ভব হত না এবং উত্তর পশ্চিমাঞ্চলে ভ্রমনের অনুপ্রেরনা আমাদের #সাহিন ভাই। ট্যুরে আমার পাশে সব সময় থাকার  জন্যে #সাহিন ভাইকে ধন্যবাদ দিয়ে ছোট কবরো না 🙂

– Nahid Talukdar

About শুভ্র সেন

সবাইকে শুভেচ্ছা । আমি শুভ্র,একজন বাইকপ্রেমী । ছোটবেলা থেকেই মোটরসাইকেলের প্রতি আমার তীব্র আগ্রহ রয়েছে । যখন আমি আমার বাড়ির আশেপাশে কোন মোটরসাইকেলের ইঞ্জিনের শব্দ শুনতে পেতাম, আমি তৎক্ষণাৎ মোটরসাইকেলটি দেখার জন্য ছুটে যেতাম ।২ বছর ধরে গবেষণা ও পরিকল্পনার পর আমি এই ব্লগটি তৈরী করি । আমার লক্ষ্য হল বাইক ও বাইক চালানো সম্পর্কে বাংলাদেশের মানুষের কাছে সঠিক তথ্য পৌঁছে দেয়া ।
সবসময় নিরাপদে বাইক চালান । আপনার বাইক চালানো শুভ হোক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*