বিডি রাইডার্স ক্লাবের অসাধারন আয়োজনঃ গো কারটিং

ফেব্রুয়ারির ২২ তারিখ কয়েকজন রেসার ও কয়েকজন বাইক প্রেমী ফ্যান্টাসি কিংডমে গিয়েছিল গো- কারটিং করার জন্য, যেটা ঢাকা থেকে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার দূরে আশুলিয়াতে অবস্থিত । সম্পূর্ণ আয়োজনটি অর্থাৎ “চল গো-কারটিং করি” আয়োজন করেছিল বাংলাদেশের অন্যতম সেরা বাইকিং গ্রুপ  বিডি রাইডার্স ক্লাব এবং আয়োজনটি সফল করার জন্য সার্বিক সহযোগিতা করেছে বাইকবিডিবিডি গোস্ট রাইডার্স

দিনটি শুরু হয়েছিল ধানমণ্ডির ইউল্যাব বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে সকাল ৮ টা থেকে বাইকারদের আসার মধ্য দিয়ে। একটির পর একটি অসাধারন বাইক যেমন এসওয়াইএম উলফ, পালসার, হাঙ্ক, এবং স্পোর্টস বাইক ইয়ামাহা আর১৫ ভি২  ও হোন্ডা সিবিআর ১৫০ আর ছাড়াও ছিল হিরো হোন্ডা গ্ল্যামার । সকলেই যেন প্রস্তুতি নিয়েই এসেছে গো-কারটিং এর জন্য । অনেকের জন্যই এটা ছিল প্রথমবারের মত আবার অনেকের জন্য এটা ব্যবসাও বটে । পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী একটি কার ও ১৪ টি বাইক নিয়ে আমরা আমাদের ভ্রমণ শুরু করলাম । যদিও আমরা অনেক লোক-সমাগম আশা করেছিলাম কিন্তু এই অসাধারন দিনটি উপভোগ করার জন্য মাত্র ২৯ জন লোকের সমাগম ঘটল ।

র‍্যালিটির নেতৃত্ব দিচ্ছিল দুটি এসওয়াইএম উলফ বাইক যেগুলো চালাচ্ছিলেন এসওয়াইএম মোঃ আলী নেওয়াজ ও পিয়াস জিআরজেড । যদিও সকালে রাস্তা ফাঁকা ছিল কিন্তু সকলে ২ বাই ২ আকারে লাইন করে অবস্থান করল এবং সামনে ছিল ফটোগ্রাফারসহ একটি কার । সকলেই সকালের স্নিগ্ধ আবহাওয়া উপভোগ করছিল । উত্তরার হোটেল রিজেঞ্চি পর্যন্ত সবকিছুই ঠিক ছিল, সেখান থেকে একটি পালসার ১৮০ ও একটি হিরো হোন্ডা গ্ল্যামার হঠাৎ করেই নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগিতা শুরু করে দিল ফলে সকলে লাইন ভেঙে বেরিয়ে গেল । প্রত্যেকেই নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়ে গেল । তখন সবচেয়ে বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়াল কে কার আগে যাবে । একজন শান্ত চালকসহ একটি সুন্দর বাইক হঠাৎ একটি দানবে পরিণত হল । এ সময় আমার মনে হল আমি যেন ঢাকার রাস্তায়  “আইজেল ম্যান টিটি” দেখছি ।

কিন্তু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার আগেই দলের দুইজন বড় ভাই শুভ্র সেনরাসেল রাইডার সকল বাইকারকে নিয়ে আব্দুল্লাহপুরে একত্রিত হলেন । তারা সবাইকে রেস না করতে ও বাজে ভাবে বাইক না চালাতে অনুরোধ করলেন কেননা আমরা সকলেই যাচ্ছিলাম আনন্দ করতে কিন্তু এভাবে রাফ চালালে একটি আনন্দের ভ্রমণ নিমিষেই সবার জন্য দুঃখ বয়ে আনতে পারে । আমি বিস্ময়করভাবে লক্ষ্য করলাম যে সকল বাইকারই তাদের কথা শুনলো এবং এর পর থেকে কেউ আর লাইন না ভেঙে অত্যন্ত সুন্দরভাবে এগিয়ে চলল ।

যেহেতু আমরা ফ্যান্টাসি কিংডমে যাচ্ছিলাম তাই গতির রাজ্যে প্রবেশ করার পূর্বেই আমরা নাস্তা করে নিলাম । যেহেতু আমরা পারকিং লটে ছিলাম পিয়াস একটি নুড়ি পাথরের টুকরো খুঁজে পেল তাই আমরা কিছুক্ষন মজা করার ও কিছু ফুট প্যাগ হুইলি এবং রোলিং স্টপি করার সিদ্ধান্ত নিলাম যা সেখানে যারা উপস্থিত ছিল সকলেই স্বাগত জানালো ।

go carting fantasy kingdom

মোট ২৯ জনের মধ্যে মাত্র ১৬ জন রেসে অংশগ্রহন করবে বাকিরা তাদেরকে সমর্থন জানানোর পাশাপাশি নিজেরা মজা করবে । এটা ছিল অত্যন্ত সুপরিকল্পিত রেসের প্রতিযোগিতা যেখানে সবাই মজা করেছিল যদিও ১৬ জন প্রতিযোগী খুবই সিরিয়াস মুডে ছিল । অনেকেই ভালো প্রতিযোগিতা করেছে অনেকেই দেয়ালের সাথে টায়ার লাগিয়ে দিয়ে ধাক্কা খেয়েছে । অবশেষে ৩ জন নির্বাচিত হল যাদের মধ্যে তুষার ছিল শীর্ষে, আমরা সকলেই জানি যে সে ফর্মুলা১ এ অংশগ্রহণের জন্য চেষ্টা করছে এবং এ লক্ষ্যে সে গত বছর ভারতে ফর্মুলা৪ সিরিজে অংশগ্রহন করেছিল । দ্বিতীয় হয়েছিল বিআরসি-র ভাইস প্রেসিডেন্ট সৈকত ও আমি তৃতীয় হই । পিয়াস চতুর্থ হয় ।

fantasy kingdom

যদিও সকল প্রতিযোগিতায় বিজয়ীরাই সকল পুরষ্কার পেয়ে থাকে কিন্তু এ প্রতিযোগিতাটি একটু ভিন্ন ধরনের । চারজন শীর্ষ প্রতিযোগীর সকলকেই ফ্যান্টাসি কিংডমের পক্ষ থেকে উপহার দেয়া হয় যা নিঃসন্দেহে একটি ভালো উদ্যোগ । তারা আমাদেরকে একই সাথে কুলের বিভিন্ন পণ্য দেয় । দিনটি শেষ হয়েছিল লোকজনের তাদের সাথে ছবি তোলার মধ্য দিয়ে । চলে যাওয়ার পূর্বে গোস্ট রাইডার্স এর প্রতিষ্ঠাতা পিয়াস জিআরজেড ও বিডি রাইডার্স ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা প্রতিষ্ঠাতা রাসেল রাইডার নিজেদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধের নিদর্শন হিসেবে তাদের অফিসিয়াল টি-শার্ট বিনিময় করলেন । এর মাধ্যমে তারা প্রমাণ করলেন যে যদিও তাদের সংঘটন দুটি পৃথক কিন্তু তাদের নিজেদের মধ্যে প্রচুর শ্রদ্ধাবোধ রয়েছে ।

motorcycle in bangladesh

ঢাকায় ফেরার পথে আমরা সমস্যাই পড়লাম । আমরা শুনলাম যে ঢাকায় সমস্যা মানে দাঙ্গা হচ্ছে এবং একথা শুনে কার ও বাইকসহ আমরা কিছুটা চিন্তিত হয়ে পড়লাম । কিন্তু স্রষ্টাকে অশেষ ধন্যবাদ যে আমরা নিরাপদেই বাড়ি ফিরতে পেরেছিলাম । আসলে আমাদের নিরাপদে বাড়ি ফেরার পিছনে বেশ কিছু কারণ ছিল যেমন অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে আমরা ৮ টি ও ৬ টি বাইকের দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে যায় । প্রথম গ্রুপ দ্বিতীয় গ্রুপের ১০ মিনিট পূর্বে পৌঁছায় । বাইক ও চালকদের নিয়ে এটা ছিল একটি অসাধারন দিন । আশা করি এ ধরনের আয়োজন ভবিষ্যতে আরও বেশী পরিমাণে করা হবে ।

-ওয়াসিফ আনোয়ার

About শুভ্র সেন

সবাইকে শুভেচ্ছা । আমি শুভ্র,একজন বাইকপ্রেমী । ছোটবেলা থেকেই মোটরসাইকেলের প্রতি আমার তীব্র আগ্রহ রয়েছে । যখন আমি আমার বাড়ির আশেপাশে কোন মোটরসাইকেলের ইঞ্জিনের শব্দ শুনতে পেতাম, আমি তৎক্ষণাৎ মোটরসাইকেলটি দেখার জন্য ছুটে যেতাম ।২ বছর ধরে গবেষণা ও পরিকল্পনার পর আমি এই ব্লগটি তৈরী করি । আমার লক্ষ্য হল বাইক ও বাইক চালানো সম্পর্কে বাংলাদেশের মানুষের কাছে সঠিক তথ্য পৌঁছে দেয়া । সবসময় নিরাপদে বাইক চালান । আপনার বাইক চালানো শুভ হোক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Sign up to our newsletter!


error: সকল লেখা সুরক্ষিত !!