শেষ পর্যন্ত ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের দামও কমলো

বাংলাদেশের মোটরসাইকেল বাজারে দাম কমানোর তালিকায় এবার যুক্ত হলো ইয়ামাহা। সম্প্রতি এসিআই মটরস বাংলাদেশে ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের দাম কমিয়েছে। বাংলাদেশের ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের একমাত্র পরিবেশক এসিআই মটরস নতুন মূল্য তালিকা নিশ্চিত করেছে। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ থেকে নতুন মূল্য কার্যকর হয়েছে। তাছাড়া ইয়ামাহা মোটরসাইকেল ইন্দো-বাংলা অটোমোটিভ শো ২০১৭-তেও অংশ নিচ্ছে। মেলায় তারা নতুন একটি বাইকও বাজারজাত শুরু করবে। বাংলাদেশে মোটরসাইকেলের দাম কমানোর এই প্রতিযোগিতার শুরু গত ডিসেম্বরের মাঝামাঝিতে হোন্ডা মোটরসাইকেলের দাম কমানোর মধ্য দিয়ে। এরপর তাদের দেখাদেখি একে একে সুজুকি, বাজাজ, হিরো, কিওয়ে, টিভিএস তাদের মোটরসাইকেলের দাম কমিয়েছে। তবে রানার, মাহিন্দ্রা ও লিফান এর মতো বড়ো কোম্পানিগুলো এ ব্যাপারে কী করবে তা জানা…

Review Overview

User Rating: 4.17 ( 3 votes)

বাংলাদেশের মোটরসাইকেল বাজারে দাম কমানোর তালিকায় এবার যুক্ত হলো ইয়ামাহা। সম্প্রতি এসিআই মটরস বাংলাদেশে ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের দাম কমিয়েছে। বাংলাদেশের ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের একমাত্র পরিবেশক এসিআই মটরস নতুন মূল্য তালিকা নিশ্চিত করেছে। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ থেকে নতুন মূল্য কার্যকর হয়েছে। তাছাড়া ইয়ামাহা মোটরসাইকেল ইন্দো-বাংলা অটোমোটিভ শো ২০১৭-তেও অংশ নিচ্ছে। মেলায় তারা নতুন একটি বাইকও বাজারজাত শুরু করবে।বাংলাদেশে ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের দাম

বাংলাদেশে মোটরসাইকেলের দাম কমানোর এই প্রতিযোগিতার শুরু গত ডিসেম্বরের মাঝামাঝিতে হোন্ডা মোটরসাইকেলের দাম কমানোর মধ্য দিয়ে। এরপর তাদের দেখাদেখি একে একে সুজুকি, বাজাজ, হিরো, কিওয়ে, টিভিএস তাদের মোটরসাইকেলের দাম কমিয়েছে। তবে রানার, মাহিন্দ্রা ও লিফান এর মতো বড়ো কোম্পানিগুলো এ ব্যাপারে কী করবে তা জানা যায়নি।ইয়ামাহা মোটরসাইকেল এসিআই

ইয়ামাহার এই নতুন মূল্য ঘোষণার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের মোটরসাইকেল ইন্ডাস্ট্রিতে নতুন যুগ শুরু হলো। গত বছরের ২২ জুন এসিআই মটরস বাংলাদেশে ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের নতুন পরিবেশক হিসেবে কাজ শুরু করে। সেদিন থেকেই তারা অগ্রীম বুকিং নেওয়া শুরু করলেও সেপ্টেম্বরের শেষ নাগাদ বহুদিন ধরে অপেক্ষায় থাকা গ্রাহকের হাতে ইয়ামাহা মোটরসাইকেল তুলে দেয়বাংলাদেশে ইয়ামাহা ফেজারের বর্তমান দাম

এরপর গত ১২ নভেম্বর ঢাকার হোটেল লা মেরিডিয়ানে এক বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে এসিআই মটরস বাংলাদেশে ইয়ামাহা মোটরসাইকেল বাজারজাত শুরু করে। তাছাড়া তারা বাংলাদেশী ক্রিকেট তারকা তাসকিন আহমেদের কোচ জনাব শাহজাহান হোসেন সাজুকে একটি ইয়ামাহা ফেজার ভি২ উপহার দিয়েছে। অবশ্য মাঝে কিছুদিন এসিআই এর আনা ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন নিয়ে কিছু ঝামেলা হয়েছিলো, কিন্তু তারা দ্রুতই সে সমস্যার সমাধান করেছে। এখন দেশব্যাপী এসিআই এর বিভিন্ন ডিলার পয়েন্ট থেকে কেনা ইয়ামাহা মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন করতে আর কোনো সমস্যা হচ্ছে না।বাংলাদেশে ইয়ামাহা এফজেডএস ভি২ এর দাম

বলে নেওয়া দরকার, এসিআই মটরস এর কর্তাব্যক্তিরা জানিয়েছেন তারা এখনো ভারত থেকে সম্পূর্ণ তৈরি অবস্থায় ইয়ামাহা মোটরসাইকেলে বাংলাদেশে আমদানি করছেন। কিন্তু তারপরও বিভিন্ন কোম্পানি দাম কমানোয় তারাও ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের দাম কমিয়েছেন। আর ইয়ামাহা প্রেমীরাও খুব করেই চাচ্ছিলেন দাম কমানো হোক।ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের নতুন মূল্য তালিকা

বাংলাদেশে ইয়ামাহার সকল শোরুম

ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের শোরুম

বাংলাদেশে যেসব ইয়ামাহা মোটরসাইকেল পাওয়া যাচ্ছে :

ইয়ামাহা বাংলাদেশইয়ামাহা মোটরসাইকেলের নতুন মূল্য তালিকায় দেখা যাচ্ছে, তারা তাদের ১২৫ সিসি শ্রেণির বাইকগুলোতে ১৫-১৮ হাজার টাকা দাম কমালেও, ১৫০ সিসি এয়ার কুল্ড শ্রেণিতে দাম কমিয়েছে ১২-১৫ হাজার টাকা। তবে সবচেয় বেশি দাম কমেছে আর১৫ এস এর, ২৫ হাজার টাকা। আর ফেব্রুয়ারির শেষ নাগাদ তারা বাংলাদেশে নতুন ইয়ামাহা এসজেড-আরআর ম্যাট গ্রিন কালার বাইক বাজারজাত শুরু করবে।

আর অনেকেরই মনে প্রশ্ন রয়েছে, গত সপ্তাহে ইন্দোনেশিয়ায় বিক্রি শুরু হওয়া ইয়ামাহা আর১৫ এমওয়াই ২০১৭ (বাংলাদেশে যেটা আর১৫ ভি৩ হিসেবেই অধিক পরিচিত) কবে নাগাদ বাংলাদেশে আসতে পারে। এ ব্যাপারে এসিআই মটরস জানিয়েছে, এই বাইকটি ভারতে বিক্রি শুরু হলে, তারাও বাংলাদেশে নিয়ে আসবে।এসিআই মটরস ইয়ামাহা

অন্যদের তুলনায় কিছুটা দেরিতে হলেও এসিআই মটরস যে শেষ পর্যন্ত ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের দাম কমিয়েছে, এটা অনেক ইয়ামাহা প্রেমীর জন্য বিরাট আনন্দের বিষয়। গত দুই মাসে বাংলাদেশের বাইক প্রেমীরা বেশ কিছু খুশির সংবাদ পেয়েছে এবং এখনো যেসব কোম্পানি বাইকের দাম কমায়নি তারাও এই পথে হাঁটবে। আশা করি ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের দাম কমায় অনেক বাইক প্রেমী তার পছন্দের ইয়ামাহা বাইকটি কিনতে পারবেন।

About মাহামুদ সেতু

হ্যালো রাইডারস, আমি মাহামুদ সেতু। থাকি রাজশাহীতে, পড়াশোনাও রাবি’তে। যদিও আমার নিজস্ব কোনো বাইক নেই, তারপরও আমি কিন্তু বাইকের ব্যাপারে পাগল। এক্ষেত্রে আমাকে ‘চন্দ্রাহত’ও বলতে পারেন, মানে ওই দূর থেকে চাঁদের (আমার ক্ষেত্রে বাইক) প্রেমে পাগল হয় যারা, তারা আর কি। যাই হোক, মূল কথায় আসি। গত দুই বছর ধরেই আমি বাইকবিডি.কমের নিয়মিত পাঠক। এখান থেকেই আমি বাইক সম্পর্কে আমার জ্ঞানতৃষ্ণা নিবারণ করেছি। ব্লগের সবগুলো লেখাই একাধিকবার পড়েছি। এখানেই জানতে পারলাম বাইক মোডিফিকেশন সম্পর্কে। শেষমেশ এখন তো সিদ্ধান্তই নিয়ে ফেলেছি, বাইক নিয়েই কাজ করবো। মানে, বাইক মোডিফিকেশনটাকেই পেশা হিসেবে নিতে চাচ্ছি। জানি কাজটা কঠিন, তারপরও আমি আশাবদী। আমার জন্য দোয়া করবেন। অবশ্য বাইক মোডিফিকেশন নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী হওয়ার পিছনে আরেকটি কারণ রয়েছে। দেশে এতো এতো সুন্দর, দ্রুতগতির ও ভালো বাইক (বাংলাদেশে আইনত যার সর্বোচ্চ সীমা ১৫০সিসি) আছে, অথচ আমার পছন্দ হোন্ডা সিজি ১২৫। আমার খুবই ইচ্ছা এই ক্ল্যাসিক বাইকটি কিনে নিজের হাতে মোডিফিকেশন করার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Sign up to our newsletter!