বিজয় দিবস উপলক্ষে হিরো মোটরসাইকেলের বিশেষ মূল্য ছাড়!!!

বিজয় দিবস উপলক্ষে মূল্য ছাড় দিচ্ছে হিরো। বাংলাদেশে হিরো মোটরসাইকেলের একমাত্র পরিবেশক নিলয় মটরস লিমিটেড গত ২৭ নভেম্বর থেকে আগামী ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশজুড়ে হিরোর সকল ডিলার পয়েন্টে হিরো স্প্লেন্ডার প্রো ও হিরো এক্সট্রিম স্পোর্টস মডেলদুটোতে হিরো মোটরসাইকেলের বিশেষ মূল্য ছাড় দিয়েছে। এ বছরের জানুয়ারিতে হিরো স্প্লেন্ডার প্রো বাংলাদেশের বাজারে আসে। আর হিরো ব্র্যান্ডের মধ্যে স্প্লেন্ডারই সবচেয়ে বেশি বিক্রীত বাইক। এই বাইকে শক্তিশালী ইঞ্জিন রয়েছে, যেটা আবার এই সেগমেন্টের সবচেয়ে জ্বালানি সাশ্রয়ী। এর ১০২ সিসির ইঞ্জিনটি ৮.১ বিএইচপি উৎপন্ন করতে পারে। এই বাইকটিতে সামনের নতুন কাউল, স্টাইলিশ স্পিডোমিটার, সাইড স্ট্যান্ড ইন্ডিকেটর, প্রশস্থ ও বড়ো সিট, পিছনের ক্যারিয়ার, আকর্ষণীয় টেইল লাইট…

Review Overview

User Rating: 4.9 ( 1 votes)

বিজয় দিবস উপলক্ষে মূল্য ছাড় দিচ্ছে হিরো। বাংলাদেশে হিরো মোটরসাইকেলের একমাত্র পরিবেশক নিলয় মটরস লিমিটেড গত ২৭ নভেম্বর থেকে আগামী ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশজুড়ে হিরোর সকল ডিলার পয়েন্টে হিরো স্প্লেন্ডার প্রো ও হিরো এক্সট্রিম স্পোর্টস মডেলদুটোতে হিরো মোটরসাইকেলের বিশেষ মূল্য ছাড় দিয়েছে।

%e0%a6%b9%e0%a6%bf%e0%a6%b0%e0%a7%8b-%e0%a6%ae%e0%a7%8b%e0%a6%9f%e0%a6%b0%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%87%e0%a6%95%e0%a7%87%e0%a6%b2%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%ac%e0%a6%bf%e0%a6%b6%e0%a7%87%e0%a6%b7

এ বছরের জানুয়ারিতে হিরো স্প্লেন্ডার প্রো বাংলাদেশের বাজারে আসে। আর হিরো ব্র্যান্ডের মধ্যে স্প্লেন্ডারই সবচেয়ে বেশি বিক্রীত বাইক। এই বাইকে শক্তিশালী ইঞ্জিন রয়েছে, যেটা আবার এই সেগমেন্টের সবচেয়ে জ্বালানি সাশ্রয়ী। এর ১০২ সিসির ইঞ্জিনটি ৮.১ বিএইচপি উৎপন্ন করতে পারে।

এই বাইকটিতে সামনের নতুন কাউল, স্টাইলিশ স্পিডোমিটার, সাইড স্ট্যান্ড ইন্ডিকেটর, প্রশস্থ ও বড়ো সিট, পিছনের ক্যারিয়ার, আকর্ষণীয় টেইল লাইট ও ফুয়েল ট্যাঙ্কের মনকাড়া গ্রাফিক্সসহ কয়েকটি নতুন কিছু স্টাইল যোগ করা হয়েছে। তাছাড়া এতে সেলফ ও কিক স্টার্টার রয়েছে।

নতুন হিরো স্প্লেন্ডার বাইকটি বেশ হালকা এবং এর সামনে টেলিস্কোপিক ও পিছনে ৫ স্টেপে অ্যাডজাস্টেবল হাইড্রলিক শক অ্যাবজর্ভার ব্যবহার করা হয়েছে। গত মাসে ভারতের বাজারে সবচেয়ে বেশি বিক্রীত বাইক ছিলো এই স্প্লেন্ডার সিরিজ।হিরো স্প্লেন্ডার প্রো ২০১৬’র বেস্ট বাইক

হিরো তাদের এক্সট্রিম স্পোর্টস বাইকটিতেও বিশেষ ছাড় দিচ্ছে। এটা ২০১৫ খ্রিস্টাব্দের জুনে বাজারে ছাড়া হয়েছিলো এবং আমরা তা নিয়ে টেস্ট রাইড রিভিউও আমাদের সাইটে প্রকাশ করেছিলাম। পাশাপাশি বাইকটি নিয়ে হন্ট রাইডারজ-এর মিঠুন মৃধার উপস্থাপনায় একটি ছোটোখাটো ভিডিও রিভিউও প্রকাশ করা হয়েছিলো।

হিরো এক্সট্রিম স্পোর্টস এর বর্তমান মূল্য ও শোরুম

এই বাইকটিতে নেকড়ে সদৃশ হেডলাইট, প্রশস্থ টিউবলেস টায়ার, ১৫.২ বিএইচপির শক্তিশালী ইঞ্জিন (এক্সট্রিম ও হাঙ্ক এর ১৪.২ বিএইচপি) ও ১৩.৫ নিউটন মিটারের টর্ক (এক্সট্রিম ও হাঙ্কের ১২.৮ নিউটন মিটার) আপনাকে ‘র পাওয়ারের’ আনন্দ দিবে।হিরো এক্সট্রিম নিয়ে বাইক স্টান্ট

এক কথায় বললে, হিরো এক্সট্রিম স্পোর্টস ফাটাফাটি চমৎকার একটি বাইক। যদিও এর জাপানি প্রতিযোগীদের চেয়ে কয়েকটি দিকে কিছুটা পিছিয়ে আছে। তবে এই বাইকের একটি জিনিস অবশ্যই আপনার পছন্দ হবে—এটাতে আগের সেই হাঙ্ক ও সিবিজেড এক্সট্রিম চালানোর মতো পাগলামি রয়েছে। সবচেয়ে বড়ো বিষয় হচ্ছে, কিছু ত্রুটি থাকলেও বাইকটি চালিয়ে খুবই মজা পাবেন।

হিরো স্প্লেন্ডার প্রোর বর্তমান মূল্য ও শোরুম

হিরো’র বিশেষ মূল্য ছাড় তালিকা

দেশজুড়ে হিরোর সকল ডিলার পয়েন্টে আগামী ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিজয় দিবস উপলক্ষে বিশেষ ছাড় পাওয়া যাবে।

মডেল আসল মূল্য বিশেষ ছাড় নতুন মূল্য
স্প্লেন্ডার প্রো ১৩৩,৯৯০ ৪০০০ ১২৯,৯৯০
এক্সট্রিম স্পোর্টস (এসডি) ১,৯৯,৯৯০ ২০,০০০ ১৭৯,৯৯০
এক্সট্রিম স্পোর্টস (ডিডি) ২১৭,৪৯০ ২০,০০০

১৯৭,৪৯০

হিরো মোটরসাইকেলের বিশেষ মূল্য ছাড় এর এই অফার চলবে আগামী ১৬ই ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত । তাই , এখনই সেরা সময় আপনার পছনের হিরো বাইকটি ক্রয় করার !

আর্টিকেলটি পূর্বে ইংরেজিতে প্রকাশ করা হয়েছিলো।

About মাহামুদ সেতু

হ্যালো রাইডারস, আমি মাহামুদ সেতু। থাকি রাজশাহীতে, পড়াশোনাও রাবি’তে। যদিও আমার নিজস্ব কোনো বাইক নেই, তারপরও আমি কিন্তু বাইকের ব্যাপারে পাগল। এক্ষেত্রে আমাকে ‘চন্দ্রাহত’ও বলতে পারেন, মানে ওই দূর থেকে চাঁদের (আমার ক্ষেত্রে বাইক) প্রেমে পাগল হয় যারা, তারা আর কি। যাই হোক, মূল কথায় আসি। গত দুই বছর ধরেই আমি বাইকবিডি.কমের নিয়মিত পাঠক। এখান থেকেই আমি বাইক সম্পর্কে আমার জ্ঞানতৃষ্ণা নিবারণ করেছি। ব্লগের সবগুলো লেখাই একাধিকবার পড়েছি। এখানেই জানতে পারলাম বাইক মোডিফিকেশন সম্পর্কে। শেষমেশ এখন তো সিদ্ধান্তই নিয়ে ফেলেছি, বাইক নিয়েই কাজ করবো। মানে, বাইক মোডিফিকেশনটাকেই পেশা হিসেবে নিতে চাচ্ছি। জানি কাজটা কঠিন, তারপরও আমি আশাবদী। আমার জন্য দোয়া করবেন। অবশ্য বাইক মোডিফিকেশন নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী হওয়ার পিছনে আরেকটি কারণ রয়েছে। দেশে এতো এতো সুন্দর, দ্রুতগতির ও ভালো বাইক (বাংলাদেশে আইনত যার সর্বোচ্চ সীমা ১৫০সিসি) আছে, অথচ আমার পছন্দ হোন্ডা সিজি ১২৫। আমার খুবই ইচ্ছা এই ক্ল্যাসিক বাইকটি কিনে নিজের হাতে মোডিফিকেশন করার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Sign up to our newsletter!


error: সকল লেখা সুরক্ষিত !!