মোটরসাইকেলের ইঞ্জিন অয়েলের সাধারন বিষয়সমূহ

পেট্রোলিয়াম ছাড়া কোন গাড়ির ইঞ্জিন মসৃণ ভাবে চলে না । মোটরসাইকেলের ইঞ্জিনও এই সাধারন প্রক্রিয়ার বাইরে নয় । মোটরসাইকেলের ইঞ্জিন মোটরসাইকেল ইঞ্জিন অয়েল (Motorcycle Engine Oil) নামক একটি বিশেষ ধরনের জ্বালানী ব্যবহার করে মোটরসাইকেল চালু করার জন্য ।  মোটরসাইকেল ইঞ্জিন অয়েল হল বিশেষ ধরনের লুব্রিকেন্ট যা মোটরসাইকেলের অন্তঃদহন ইঞ্জিন ও ট্রান্সমিশনের জন্য বিশেষভাবে তৈরী ও বাজারজাত করা হয়েছে । ভাল ফলাফলের জন্য বিভিন্ন চার চাকার বাইকেও এটি ব্যবহার করা উচিত।

motorcycle engine oil

আধুনিক বাইকগুলোর অধিকাংশই তাদের  ক্লাচ, ট্রান্সমিশন ও ইঞ্জিনে তেল দেয়ার জন্য একই ধরনের ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করে । সাধারণ গাড়ির জন্য তৈরী তেলগুলো শুধুমাত্র ইঞ্জিনের জন্য তৈরী করা হয় যদিও এগুলো দিয়ে মোটরসাইকেলও চলে । কিন্তু আমেরিকান পেট্রোলিয়াম ইনস্টিটিউট এর বর্ণনা অনুযায়ী ভেজা ক্লাচযুক্ত মোটরসাইকেলের জন্য এগুলো সম্পূর্ণ অনুপযুক্ত। যদিওবা ক্লাচ স্লিপ করা নিয়ে তাদের প্রতিবেদনে যা বলা হয়েছে তাকে অতিরঞ্জিত মনে হতে পারে ।

মোটরসাইকেল ইঞ্জিন অয়েল প্রস্তুতকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যেমন জাপান অটোমোটিভ স্ট্যান্ডার্ড অর্গানাইজেশন বা জাসো মোটরসাইকেলের জন্য উপযুক্ত বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন  ইঞ্জিন অয়েল তৈরীতে কাজ করে যাচ্ছে । এর সাথে যুক্ত অন্যান্য তেল প্রস্তুতকারক কোম্পানিগুলোও শুধুমাত্র মোটরসাইকেলের জন্য উপযুক্ত তেল তৈরীর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ।

এ ক্ষেত্রে তাদের প্রধান প্রতিবন্ধকতা হল মোটরসাইকেলের একই রাসায়নিক পদার্থে চালিত দুটি ভিন্ন অংশ । সাধারন কার ও ট্রাকের ইঞ্জিন অয়েলের নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন ইপি সংযোজিত থাকে কিন্তু এই সংযোজিত ইপি যে সকল ইঞ্জিনে একই সাথে ইঞ্জিন ও ট্রান্সমিশনে তেল দিতে হয় সেগুলোতে ব্যবহার করার উপযোগী নয় । বিভিন্ন সান্দ্রতাযুক্ত তেলগুলোতে ভিআইএস  নামক সান্দ্রতা বাড়ানোর রাসায়নিক থাকে যেটা উচ্চ তাপমাত্রায় এ ধরনের তেলগুলোর খুবই পাতলা হয়ে যাওয়া রোধ করে ।

ভিআইএস  খুবই বড় রাসায়নিক পদার্থ যেটা মোটরসাইকেলের ট্রান্সমিশনে অবস্থান করে গতি কমিয়ে দিতে পারে। তাই এ সমস্যার সমাধান হল হালকা ওজনের তেল ব্যবহার করা যাতে  ভিআইএস (Viscocity) নেই। যদিও হালকা ওজনের তেলগুলো শীতল অবস্থায় ভালোভাবে পরিবাহিত হয় না । তাই তেলগুলো সম্পূর্ণ গরম না হওয়া পর্যন্ত ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন ।

এর বিকল্প হিসেবে সিনথেটিক অয়েল ব্যবহার করা যায় । সিনথেটিক অয়েল এমনভাবে তৈরী করা হয়েছে যাতে শীতল অবস্থায়ও এরা ভালোভাবে প্রবাহিত হতে পারে এবং এতে সান্দ্রতা বৃদ্ধির জন্য সামান্য পরিমাণে ভিআইএস (Viscocity) মিশ্রিত থাকে । জমে যাওয়া ইঞ্জিন অয়েলের কারণে ভেজা ক্লাচ স্লিপ করতে পারে । অনেক মোটরসাইকেলে ক্লাচ ভেজা থাকে যেখানে ক্লাচ প্লেট তেলের মধ্যে ডুবানো থাকে । কিছু তেল ক্লাচ প্লেটকে খুবই পিছলা করে ফেলে ফলে যখন গিয়ার নাড়ানো হয় তখন ক্লাচ  ঠিকভাবে কাজ করে না বা ইঞ্জিন যখন একটি নির্দিষ্ট লেবেলে ঘোরে তখন ক্লাচ পিছলে যায় ।

কিছু তেলে ঘর্ষণরোধী রাসায়নিক পদার্থ থাকে। মোটরসাইকেলের জন্য সঠিকভাবে নির্দেশিত ইঞ্জিন অয়েল যথাযথ লুব্রিকেসন ( ইঞ্জিনে তেল দেয়া ) নিশ্চিত করে এবং মোটরসাইকেলের ক্লাচকে ঠাণ্ডা রাখে। এমনকি এটা বিভিন্ন কঠিন পরিস্থিতেও ১০০% ট্রান্সমিশন সরবরাহ করে । যেসকল ইঞ্জিন অয়েল  জাসো- এমএ এর পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয় সেগুলো ভেজা ক্লাচে অত্যন্ত ভালো কাজ করে । এ ধরনের ইঞ্জিন অয়েলে  জাসো- এমএ  এর লেবেল লাগানো থাকে ।

আশাকরি মোটরসাইকেলের ইঞ্জিন অয়েল সম্পর্কে লেখা এ লেখাটি আপনাকে আপনার মোটরসাইকেলের জন্য সঠিক ও সেরা ইঞ্জিন অয়েল নিতে সাহায্য করবে ।

 

About শুভ্র সেন

সবাইকে শুভেচ্ছা । আমি শুভ্র,একজন বাইকপ্রেমী । ছোটবেলা থেকেই মোটরসাইকেলের প্রতি আমার তীব্র আগ্রহ রয়েছে । যখন আমি আমার বাড়ির আশেপাশে কোন মোটরসাইকেলের ইঞ্জিনের শব্দ শুনতে পেতাম, আমি তৎক্ষণাৎ মোটরসাইকেলটি দেখার জন্য ছুটে যেতাম ।২ বছর ধরে গবেষণা ও পরিকল্পনার পর আমি এই ব্লগটি তৈরী করি । আমার লক্ষ্য হল বাইক ও বাইক চালানো সম্পর্কে বাংলাদেশের মানুষের কাছে সঠিক তথ্য পৌঁছে দেয়া । সবসময় নিরাপদে বাইক চালান । আপনার বাইক চালানো শুভ হোক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Sign up to our newsletter!


error: সকল লেখা সুরক্ষিত !!